তরুণদের পারফরম্যান্স নিয়ে ভীষণ দুশ্চিন্তায় বিসিবি

একদিনের সীমিত ওভারের ফরম্যাটে ‘পঞ্চ পান্ডবই’ ছিলেন টাইগারদের প্রধান চালিকাশক্তি। টিম বাংলাদেশের বেশীর ভাগ সাফল্যর মুল রুপরকারই সিনিয়র পাঁচজন; মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক ও রিয়াদ।

সেই ‘পঞ্চ পান্ডবের’ অগ্রজ মাশরাফি মর্তুজা এখন আর নেই। ওয়ানডে থেকে অবসর না নিয়েও এখন তিনি দলের বাইরে। অগ্রজ না থাকলেও বাকি চার সিনিয়র কিন্তু ঠিকই পারফরম করে যাচ্ছেন এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচেই জয়ের রুপকার, নায়ক ও স্থপতি সিনিয়ররাই।

এরমধ্যে মুশফিকুর রহিম ব্যাট হাতে অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন। আগের ম্যাচে ৮৪ রানের দারুণ ইনিংস খেলার পর আজ ২৪ মে মঙ্গলবার শেরে বাংলায় এক সংগ্রামী শতক উপহার দিয়েছেন। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের ২৫৭ রানের ৭০ ভাগের বেশি রান তিন পান্ডব- তামিম (৫২), মুশফিক (৮৪) আর রিয়াদের (৫৪)। ১০৯ রানের সবচেয়ে বড় পার্টনারশিপটি ছিল দুই সিনিয়র মুশফিক ও রিয়াদের।

আজও দ্বিতীয় ম্যাচেও অনেকটা তাই। মুশফিক একা খেলেছেন ১২৫ রানের ইনিংস। আর দ্বিতীয় সর্বাধিক ৪১ রান এসেছে তারই ভায়রা ভাই, আরেক সিনিয়র সদস্য রিয়াদের ব্যাট থেকে। ৭৪ রানে ৪ উইকেট পতনের পর দল যখন গভীর সংকটে, তখন পঞ্চম উইকেটে মুশফিক ও রিয়াদের ৮৭ রানের পার্টনারশিপটিই দলকে টেনে তুলেছে।

এই দুই ম্যাচের একটিতেও দলের জুনিয়র সদস্যদের কারো ব্যাট কথা বলেনি। এক কথায় কেউ কোন কার্যকর অবদান রাখতে পারেননি। ওপেনার লিটন দুই খেলায় (০ + ২৫) ২৫, আফিফ হোসেন ধ্রুব (২২*+ ১০) ৩২, মিঠুন এক ম্যাচে শূন্য আর তার বদলে সুযোগ পাওয়া মোসাদ্দেক আজ করেছেন ১০।

এই হলো দলের জুনিয়র ব্যাটারদের অবদান। এটা শুধু হতাশারই নয়। চিন্তারও কারণ। বাংলাদেশের ক্রিকেটের সফল সেনাপতি আকরাম খানও যারপরনাই চিন্তিত। তরুণদের পারফর্ম করতে না পারা এবং বড়দের পাশাপাশি কার্যকর অবদান রাখতে ব্যর্থতাকে রীতিমত ‘বিপদসঙ্কেত’ বলে মন্তব্য করেছেন আকরাম।

তার মানে তামিম, মুশফিক ও রিয়াদ-সাকিবরা ব্যাট হাতে ত্রাণকর্তার ভূমিকা না নিলে ব্যাটিংয়ের অবস্থা হবে করুন। এ অবস্থায় তরুণদের সামনে এগিয়ে আসা খুব জরুরি। তাদের ব্যাটে রান চাই। তাহলেই কেবল টিম পারফরমেন্স হবে। অন্যথায় বড়দের ওপর নির্ভরতা থেকেই যাবে।

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবির অন্যতম শীর্ষ কর্মকর্তা আকরাম খান মনে করেন, ‘বাংলাদেশ দল খুবই লাকি যে, সিনিয়ররা দীর্ঘদিন ধরে ভাল পারফরম করে আসছেন। তার অনুভব, সময় এসেছে তরুণদের সামনে এগিয়ে আসার। ভাল পারফর্ম করার।’

আজ মঙ্গবার দ্বিতীয় ম্যাচ চালকালীন হোম অফ ক্রিকেটে সাংবাদিকদের সাথে আলাপে ক্রিকেট অপস চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা খুবই ভাগ্যবান যে তিন-চারজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার আমাদের অনেকদিন ধরে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে। ভালো পারফর্মও করছে। তবে আমার মনে হয় সময়টা চলে এসেছে তরুনদের পারফর্ম করার।’

আকরাম আরও বলেন, ‘তরুণদের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না, একথা বলা কিন্তু ভুল হবে। এখন পর্যন্ত সুযোগ দেওয়া হয়েছে।’

তরুণদের প্রতি আকরাম খানের পরামর্শ হলো, ‘তাদের উচিৎ অভিজ্ঞদের অনুকরণ করা। আমাদের বাংলাদেশ দলে অনেক ভালো প্লেয়ার, কিন্তু যারা কোয়ালিটি প্লেয়ার আছে তাদের মতো হওয়া দরকার। সেই জায়গায় কিভাবে পৌঁছাবে সেটা সিনিয়রদের সঙ্গে কথা বলে শেয়ার করে নেওয়া উচিত।’

আকরামের শেষ কথাটি কিন্তু খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। তাহলো তিনি তরুণদের সামনে এগিয়ে আসতে না পারা এবং কার্যকর অবদান রাখতে না পারাকে রীতিমত চিন্তার কারণ বলে অভিহিত করেছেন। তার ভাষায়, ‘এটা আসলে আমাদের জন্য অ্যালার্মিং।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *